Tinpahar
No Comments 13 Views

বাসের সিটে সংরক্ষণ চালু নিয়ে জল্পনা কল্পনা

ভাড়া বাড়ানো নিয়ে বাস মালিকদের সঙ্গে সরকারের দ্বন্দ্ব আজকের নয়। এর পূর্বে যখনি জ্বালানির দাম বেড়েছে তখনি বাস ভাড়া বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছে বাসমালিক সংগঠনগুলো। কিন্তু আজ -কাল, বড়দিনের পর ইত্যাদি বলে তাদের দাবি এড়িয়ে গেছে সরকার। উপরন্ত বাসের পারমিট বাতিল ইত্যাদি হুমকি হয়েছে বাসমালিকদের। সে যাইহোক কলকাতার রাস্তায় যথেষ্ট বাস না চললে যারা সমস্যায় পরে তারা হলো সাধারণ জনগণ, যে জনগনের কথা ভেবেই নাকি সরকার বাসভাড়া বাড়াতে নারাজ।
এসব কথা সবার জানা ,এখন নতুন যে বিষয় নিয়ে বাসমালিক ও সরকারের দ্বন্দ্ব বেধেছে তা হলো সংরক্ষণ। শিক্ষাক্ষেত্রে আসন সংরক্ষণ নিয়ে ইতিমধে বহুবার ছাত্রসংগঠন গুলো ও সরকারের মধ্যে সংঘাতের সাক্ষী থেকেছি আমরা ,কিন্তু সেই আসন সংরক্ষণ যে বাসমালিক ও পরিবহন দপ্তরের মধ্যে নতুন সংঘাতের কারণ হয়ে দাড়াবে তা কখনই ভাবা যায়নি। লোকসভা নির্বাচনের যখন প্রতিটি রাজনৈতিকদল নিজেদের আখের গোছাতে ব্যস্ত্ ,তখন সরকারে থাকা রাজনৈতিকদল কেনই বা পিছিয়ে থাকে। পূর্বের নির্বাচন গুলির ফলাফল থেকে যে বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে দাড়িয়েছে হলো,সংখালঘু এবং অনগ্রসরশ্রেণী র ভোটে ছাড়া নির্বাচনী বৈতরণী পার করা সম্ভব নয়। তাই তাদের খুশি করতে সরকারের নতুন পরিকল্পনা “পরিবহনে সংরক্ষণ “…শিক্ষা ,চাকরি ইত্যাদি র পর এবার পরিবহনে সংরক্ষণ চালু করার কথা ভাবছে রাজ্য সরকার। বিশেষ সূত্রের খবর অনুযায়ী পরিবহন দপ্তরের কর্তাদের সঙ্গে এই বিষয়ে দুই -তিন দফা বৈঠকও করেছেন পরিবহনমন্ত্রী। আরো জানা গেছে প্রাথমিক ভাবে কিছু শীর্ষ কর্তা এই বিষয়টা প্রাকটিক্যাল নয় বলে মত প্রকাশ করলেও পরবর্তীকালে সকলের সম্মতি নিয়েই এই বিশেষ ব্যবস্থা (সংরক্ষণ ব্যবস্থা) চালু করার কথা ভাবছে রাজ্যসরকার।এখনো পর্যন্ত কলকাতার বাসগুলি তে যে আসন গুলি সংরক্ষিত আছে সেগুলি হলো মহিলা ,বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী আসন। এরপর এই নতুন ব্যবস্থা চালু হলে এই তালিকায় যুক্ত হবে সংখালঘু ও অনগ্রসরশ্রেণী র জন্য সংরক্ষিত আসন। সরকারের পক্ষ থেকে এক বিশেষ বিগপ্ত্তি র দ্বারা জানানো হয়েছে যে সংখালঘু এবং অনগ্রসরশ্রেনীর অন্তর্ভুক্ত জনসাধারণকে যতটা সম্ভব আরামে গন্ত্যবে পৌছে দেবার জন্যই এই নতুন ব্যবস্থার চালু করার কথা ভাবছে পরিবহন দপ্তর। সরকারের এই বিগপ্প্তির পরেই নানা মহলে নানা প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। এই সিদ্ধান্তের সপক্ষে ও বিপক্ষে মত নেহাত কম নয়.
কিন্তু এই বিষয়ে বাসমালিকরা কি বলছেন ? তারা বলছেন একই নতুন ঝামেলারে বাবা…!!! মহিলা সিটে মহিলা বসবে ,বয়স্কদের জন্য বরাদ্ধ সিটে বয়স্ক মানুষ বসবে এবং প্রতিবন্ধী সিতে প্রতিবন্ধী-বন্ধু বসবে এই পর্যন্ত তো ঠিক ছিল কিন্তু নতুন নিয়ম চালু হলে তো ভীষণ সমস্যায় পড়েযাবে আমাদের কন্টাকটার ভাইরা। তারা কখনই বা টিকিট দেবে কখনই বা সার্টিফিকেট এর সত্যতা পরীক্ষা করে সঠিক ব্যক্তি কে সঠিক সিটে বসাবেন। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বেকার যুবক-যুবতী সংগঠনের পক্ষ থেকে এই সিধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে এবং পাশাপাশি এই দাবি জানিয়ছে যে প্রতিটি বাসের জন্য একজন করে পর্যবেক্ষক নিয়োগ করা হোক ,এরাই নতুন সংরক্ষিত সিট গুলিতে সঠিক লোক বসছে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করবে। এর দ্বারা নতুন সংরক্ষণ ব্যবস্তা র লাভ যেমন উপযোক্ত বেক্তি পাবে তেমন বহু বেকার যুবক-যুবতীর চাকরি হবে। অবশ্য সরকারী কোষাগারের যা অবস্থা তাতে এই দাবী মানা কতটা সম্ভব তা এখনি কিছু বলা যাচ্ছেনা। তবে রাজনৈতিক মহলের খবর সরকার এই দাবি মেনে নিতে পারে ,কারণ এতে সংখ্যালঘু ,অনগ্রসরশ্রেণী -র জনগণ ছাড়াও বহু বেকার যুবক-যুবতীর মন জয় করাযাবে।
এই নতুন সংরক্ষণ বিষয়ে গতকাল পর্যন্ত কোনো নতুন তথ্য পাওয়া যায়নি সরকারের পক্ষ থেকে। তবে মহানগরীর রাজপথ যে রাজনৈতিক মিছিলের দ্বারা সংরক্ষিত হতে চলেছে তা বলাই বাহুল্য। অনেকের মতে এই সিধান্ত বলবত হওয়া এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা ,আবার অন্য এক দলের মতে এই প্রকার সিধান্ত এখননি কার্যকর করা সম্ভব নয়। আসল ঘটনা যাইহোক ‘সাধারণের’ মনে এখন একটাই চিন্তা ,এখনকার বাস গুলির প্রায় অর্ধেক তো মহিলা এবং অনন্য সংরক্ষিত সিট দ্বারা ভর্তি থাকে যদি এই নতুন সংরক্ষণ ব্যবস্থা চালু হয় তাহলে তারা বসবে কোথায় ? এইদিন বিকেলে পরিবহন মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান পশ্চিমবঙ্গ ‘সাধারণ’ জনগনের এক প্রতিনিধি দল। তাদের পক্ষ থেকে দাবি জানানো হয়েছে যে ‘সাধারণ’-বাসে এই প্রকার নতুন সংরক্ষণ না করে, এর জন্য সরকার পৃথক বাস চালু করতে পারে।
এছাড়াও বহু অন্যান্য গণ-সংগঠন র পক্ষ থেকে নানা প্রকার দাবি জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারের কাছে , তাই সব মিলিয়ে বল এখন সরকারের কোর্টে।

About the author:
Has 212 Articles

LEAVE YOUR COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *

RELATED ARTICLES

Back to Top