Tinpahar
No Comments 32 Views

K. G. Subramanyan as a Muralist #1

বহুমুখী শিল্পচর্চার মধ্যে সুব্রহ্মণ্যনের ম্যুরাল চর্চাও তার শিল্পীজীবনকে বিশিষ্ট করেছে। ম্যুরাল শিল্পের প্রতি এই আগ্রহ তার সমসাময়িক শিল্পীদের মধ্যেও খুব একটা দেখা যায় না। প্রধান আধুনিক শিল্পীদের করা ম্যুরালের সংখ্যাও সীমিত। ব্যক্তিস্বাতন্ত্রতা এবং শিল্পে সমাজ-অনপেক্ষ স্বয়ং-সম্পূর্ণতার আদর্শ, অনির্দেশ্য অনামী পাঠক সমাজ, মৌলিক প্রকাশভঙ্গি নির্মানের তাগিদ প্রভৃতি সাংস্কৃতিক আধুনিকতার নানা বৈশিষ্ট-লক্ষণ আধুনিক যুগে ম্যুরাল শিল্প বিকাশের পক্ষে অনুকুল ছিল না।ফিরে দেখলে দেখা যাবে অতীতে ম্যুরাল শিল্পের প্রভূত বিকাশের অন্যতম কারণ শিল্পী ও দর্শক একটি সাধারণ ভাষা ও নান্দনিক বোধের অংশীদার, উভয়ে একই বিশ্বাস ও মূল্যবোধের জমির উপর দাঁড়িয়ে। ম্যুরাল শিল্পের জন্য এই সাবেকি পরিবেশ আধুনিক সময়ে দুর্লভ। হয়ত ঠিক দ্বি-মুখী সংলাপ নয়, তবে আধুনিক সময়েও ম্যুরাল বা অন্য গণশিল্প চর্চার মাধ্যমে সমাজ ও শিল্পের মধ্যে সংলাপ সেতু বানানোর সচেতন প্রয়াস লক্ষ্য করা যায়। রুশ আঁভাগ়াঁ, বাওহাউস কিংবা মেক্সিকোর ম্যুরাল মুভমেন্ট স্বল্পজীবী হলেও সমাজ ও শিল্পের মধ্যে সংযোগ গড়ে তলার ক্ষেত্রে কয়েকটি সদর্থক পদক্ষেপ। এই সকল ঐতিহাসিক শিল্প আন্দোলন মূলত সান্স্কৃতিক আধুনিকতার মূল ধারায় কতকগুলি বিচলন, ইউটোপিয়ান সমাজ ভাবনার আদর্শে উদ্বুদ্ধ শিল্পী-গোষ্ঠীর সমাজ পরিবর্তনে শিল্পের ভুমিকা বুঝে নেবার প্রচেষ্টা।

সাম্প্রতিক কালের শিল্পচর্চায় লক্ষ্য করা যায় আধুনিকতার আদিকল্প ভেঙে বেরিয়ে আসার প্রবণতা। দেখা যায় সমাজ-অনপেক্ষ স্বয়ং-সম্পূর্ণতার আদর্শ থেকে সরে আধুনিক শিল্পচর্চা ক্রমে বৃহত্তর সামাজিক জীবনে যেমন অনুপ্রবেশিত হচ্ছে তেমনি জনপরিসর এবং সামাজিক প্রেক্ষিত শিল্প ভাবনায় প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। তথাপি পরম্পরাগত সাবেকি সমাজে যে চাহিদা ও উদ্যোগ ম্যুরাল ও অন্যান্য লোকশিল্পের বিকাশে উপযোগী ছিল আধুনিক যুগে তার অনুপস্থিতি এবং সেই সঙ্গে অনুৎসাহী পাঠক সমাজ এই ধরনের শিল্প প্রচেষ্টাকে একপেশে করে রেখেছে। প্রাতিষ্ঠানিক বৃত্তে আধুনিক শিল্পচর্চা ক্রমশ সংক্ষেপিত হয়ে ব্যক্তিগত সংলাপে পরিনত হেছে এবং শিল্পবস্তু পরিনত হয়েছে দুর্মূল্য সৌখিন পণ্যে। জনসংযোগে উদ্বিগ্ন আধুনিক শিল্পী যখন একপ্রকার বাধ্য হয়েই নিজের শিল্পচর্চাকে সাধারণের বোধগম্য করে তুলতে চান তখন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই শিল্পের গভীরতা রক্ষা সম্ভব হয় না , শিল্প নান্দনিক ক্ষেত্রে একমাত্রিক ও অর্থের দিক দিয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে। অন্যদিকে জনসংযোগের জন্য শিল্পীকে প্রায়সই প্রস্তুত এবং পরিনত যোগাযোগ-প্রযুক্তি ও প্রতিষ্ঠা-মঞ্চের নির্ভর হতে হয়। এর ফলে জনপরিসরে আধুনিকতার আকস্মিক ও রূঢ় অনুপ্রবেশ জনমাধ্যমের স্বাভাবিক রুপধর্মের সঙ্গে শিল্পকর্মের সংঘাত তৈরী করে। এই দ্বন্দ্ব-মুহুর্তেই আধুনিক শিল্পীর সক্রিয় উপস্থিতি সাধারণের নজরে আসে।অজন্তার শিল্পী কিংবা গথিক গির্জার রঙীন কাঁচের শিল্পী এমন কি জত্তো কিংবা মাইকেলাঞ্জেলোর ক্ষেত্রেও এসবের কোনো প্রয়োজন ছিল না। সমাজ স্বীকৃত প্রাতিষ্ঠানিক ও ভাষা পরিসরে, তাদের শিল্পকলায় ধর্মীয় আখ্যান,ধর্ম-দর্শনের গূঢ়তত্ত্ব, সামাজিক বার্তা ও সূক্ষ নান্দনিকতার বহুমাত্রিক আবেদন সহজেই লোকগ্রাহ্য হয়েছিল। এই সুবিধাটুকু সমকালীন আধুনিক শিল্পীদের সামনে ছিল না।

ম্যুরাল শিল্পী হিসাবে এই সকল প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে উঠতে সুব্রহ্মণ্যনকে একাধিক অবস্থান ও কৌশলের সাহায্য নিতে হযেছিল।কালের বিচারে ও মানসিকতায় তিনি আধুনিক শিল্পী। শুরু থেকেই তিনি বুঝেছিলেন বর্তমান যুগে সামাজিক আদানপ্রদানের উপর নির্ভর করে আধুনিক শিল্পচর্চা সম্ভব নয়, তাই ব্যক্তিগত ইচ্ছায় নয়, বরং কতকটা ইতিহাসের উপরোধে শিল্পচর্চাকে নিজস্ব সংবেদনের উপর ভিত্তি করে গড়ে নিতে হযেছিল। কর্মজীবনের শুরুতে শিল্পচর্চার পাশাপাশি সুব্রহ্মণ্যন কারুশিল্প পরিকল্পক হিসাবে কাজ করেছেন। একান্ত নিজস্ব ভাবনা কিভাবে প্রতিষ্ঠিত যোগাযোগ বর্তনীর মাধ্যমে প্রকাশ করা সম্ভব, কিভাবে মৌলিক সৃষ্টির সন্ধান সাবেকি দৃশ্যভাষাব্যবস্থার মধ্যে থেকেই করতে হয়, তার আন্দাজ তিনি কারুপ্রতিষ্ঠানের অভিজ্ঞতা থেকে বুঝেছিলেন। আর্থিক সমাধান হিসাবে সেই সময় অনেক শিল্পীকেই বিভিন্ন কারু-প্রতিষ্ঠানে মন্ডন শিল্পী হিসাবে কাজ করতে হয়েছে, কিন্ত সেই অভিজ্ঞতাকে আধুনিক শিল্পচর্চায় সুব্রহ্মণ্যন যেমন বুঝেছিলেন তেমন করে বুঝে উঠতে তার সমসাময়িক কোনো শিল্পীকে যায় না। আধুনিকতার সর্বোচ্চ পর্যায়ে উপভোগ ও সামাজিক আদানপ্রদানের সংকুচিত, মন্ডলীভূত; শিল্প সেখানে একান্ত পরিচিন্তনের বস্তু। অন্যদিকে ব্যবহারিক শিল্পে এবং মন্ডন শিল্পে যোগাযোগ একটি প্রধান ও প্রয়োজনীয় লক্ষ্য। সুব্রহ্মণ্যন আদানপ্রদানের এই সম্ভবনাকে সকল শিল্পচর্চার ক্ষেত্রেই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করতেন। তার নিজের বিদ্যাচর্চা, পরম্পরাগত শিল্পের প্রতি আগ্রহ এবং শান্তিনিকেতনের শিল্পশিক্ষা সুব্রহ্মণ্যনের শিল্পভাবনার জমি প্রস্তুত করেছিল।

About the author:
Has 212 Articles

LEAVE YOUR COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to Top